Shadow

বেকার সমস্যা

বেকার সমস্যা

বাংলাদেশে অন্যান্য সমস্যার মতঅন বেকার একটি বড় সমস্যা । দেশে শিক্ষার হার যে ভাবে বাড়ছে,তাতে করে কর্মসংস্থান

তেমন বাড়ে নি। যার ফলে বৃদ্ধি পাচ্ছে বেকার সমস্যা। বেকারত্ব একটি অভিশাপ । বেকারদের জীবনের কষ্ট সাধারণত কেউ

বুঝতে চায় না । একজন বেকারকে পরিবারে  যেমন ছোট হতে হয় ,ঠিক তেমনি সমাজের মানুষের মুখে নানা কথা  শুনতে  হয় ।

তাদেরকে সমাজে এক প্রকারের বোঝা হিসাবে দেখা হয় ।

বেকার সমস্যা

বেকার সমস্যা
বেকার সমস্যা

বাংলাদেশের বেকার সমস্যার জন্য দায়ী কিছু দিক তুলে ধরা হলোঃ-

ভালো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার অভাবঃ আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে সাধারণত ভালো রেজাল্ট করানোর জন্য পড়ানো হয় ।

এতে করে পরীক্ষায় যা আশে তাই শূধু দেখানো হয় । এর বাহিরে তেমন কিছুই দেখানো হয় না। ফলে পাঠ্যবইয়ের অনেক কিছুই

তাদের অজানা রয়ে যায় । অপর দিকে জব পরীক্ষায় কোথায় থেকে প্রশ্ন হবে এইটার নির্দিষ্ট কোণ ধারণা থাকে না। তবে

প্রশ্নগুলো আমাদের বই থেকেই হয়ে থাকে । এইদিকে আমারা যখন শূধু ভালো ফলাফলের জন্য পড়ে থাকি তখন বই সম্পর্কে

আমাদের অনেক কিছুই অজানা থেকে যায় । ফলে চাকুরির পরীক্ষায় যখন প্রশ্ন আসে সেইটার সঠিক ধারণা না থাকায় আমরা

উত্তরও করতে পারি না। এর ফলে প্রতিযোগীতা থেকে আমরা ছিটকে পড়ে যাই ।

কর্মসংস্থানের অভাবঃ আমাদের দেশে যে হারে শিক্ষিতের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে ,সেই হারে কর্ম সংস্থান বৃদ্ধি পাচ্ছে না । যার ফলে

নতুন ব্যক্তি নিয়োগ দেয়া চ্যালেঞ্জের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে । তেমন কর্ম সংস্থান না থাকায় কাজের অভাবে উপযুক্ত যোগ্যতা

থাকার পরেও বেকারত্ব বহন করতে হচ্ছে ।

বেকার সমস্যা

দূর্ণিতিঃ আমাদেশের অনেক কর্ম সংস্থানে দূর্ণিতি প্রবেশ করেছে । অনেক সময় সজন প্রিতি করে নিয়োগ দেয়া হয় । যার ফলে

উপযুক্ত ব্যক্তি কাজ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে । এবং বেকারত্ব বহন করছে।

সরকারী চাকুরীকে প্রাধান্য দেয়াঃ আমাদের দেশের মানুষ সাধারণত সরকারী চাকুররীকেই প্রাধান্য দিয়ে থাকে । যার ফলে সবাই

সরকারী চাকুরীর পিছনে ছুটতে থাকে । এবং এক সময় চাকুরির বয়স শেষ হয়ে যায় তবুও সরকারী চাকুরী হয় । ফলে বেকারত্ব

জীবন বহন করা লাগে ।

বেকার সমস্যা

বেকারত্ব জীবন কেমন হয়ঃ বেকার জীবন অনেক কষ্টের হয় । তাদের কষ্ট কেউ বুঝতে চায়না । সমাজে তারা অবহেলার পাত্র ।

তাদের নানা ভাবে বাঁকা চোখে দেখা হয় । কথায় কথায় পড়াশূনার খোটা দেয়া । যে ছেলেটা পরিবারের প্রিয় পাত্র,সেই ছেলেটাও

একসময় বিষের পাত্র হয়ে যায় । পরিবারের কাছেও তাকে লাঞ্ছনা গঞ্চনা সহ্য করতে হয় । অনেকে মানুসিক অশান্তি নিতেনা

পেরে আত্নহত্যার পথ পর্যন্ত বেঁচে নেয় ।

বেকারত্ব দূর করায় আমাদের করণীয়ঃ-

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার মান বাড়ানোঃ আমাদের পড়াশুনা কিছু শেখার জন্য হওয়া উচিত,ভালো ফলাফলের জন্য নয় । স্কুল

কলেজের ভিত্তিটা শক্ত করা উচিত। তাহলেই চাকুরীর প্রতিযোগীতায় ঠিকে থাকা সম্ভব।

সরকারী চাকুরীর পাশাপাশি অন্যান্য চাকুরীর চেষ্টা করা ঃ সবার জন্য সব কিছু নয় , নিজের যোগ্যতা দেখে সেই অনুয়াযী কাজ

করে যেতে হবে। সরকারী চাকুরীকে একমাত্র লক্ষ্য না করে বিভিন্নভাবে কাজ করে যেতে হবে। যে কোন কাজকে ছোট না মনে

করে শ্রদ্ধার সাথে গ্রহন করতে হবে।

চাকুরির পাশাপাশি অন্যান্য কাজের চিন্তা করতে হবেঃ পড়াশুনা করে আমাদের চাকুরিই একমাত্র লক্ষ্য হওয়া উচিত নয় । বরং

চাকুরির পাশাপাশি ব্যবস্যা, মৎস্য চাষ , গরুর খমার ইত্যাদি কর্ম সংস্থান বেছে নিতে হবে । সামর্থ্য থাকলে উদ্দ্যোগতা হওয়ার

চেষ্টা করে যেতে ।

দূর্ণিতি রোধ করতে হবেঃ যে সব কর্ম ক্ষেত্রে দূর্ণিতি গ্রস্থ  লোকের জন্য যোগ্যতা সম্পূর্ণ লোক কর্মক্ষেত্রো থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে

,সেই সমস্ত ব্যক্তিকে আইনের আওয়াতায় আওন্তে হবে।

এড়াছাও নিজেকে দক্ষ হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। কারীগড়ী শিক্ষার মান বাড়াইতে হবে । ফ্রিল্যান্সিং সহ বিভিন্ন কর্ম ক্ষেতের সাথে

জড়িত হতে হবে ।

আমাদের দেশে যেহেতু কর্মসংস্থানের অভাব রয়েছে , তাই নিজের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অন্যের কর্মসংস্থানও যেন নিশ্চিত

হয় এমন কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

এবং পরিশেষে বলা বলব একজন মানূষকে কখনই বেকার বলবেন না । হয়তো তার চাকুরি নাই ,কিন্তু তিনি অন্য কাজের সাথে

জড়িত ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.